থ্যালাসেমিয়া কি বিস্তারিত | What is Thalassemia in Bengali

আমরা থ্যালাসেমিয়া রোগটির কথা শুনেছি কিন্তু আসলে এই রোগটি কি তা আমরা অনেকেই ভালো করে জানি না। তাই আজ আমরা ভালো করে জেনে নেব Thalassemia রোগটি নিয়ে বিস্তারিত।

আমরা মুলত যে যে টপিকে জানার চেষ্টা করব তা আসলে – থ্যালাসেমিয়া কি (What is Thalassemia in Bengali), কত প্রকার, বিটা থ্যালাসেমিয়া কি , আলফা থ্যালাসেমিয়া কি, রোগের কারণ, থ্যালাসেমিয়া রোগের লক্ষণ, থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়ে পরীক্ষা বা টেস্ট, থ্যালাসেমিয়া রোগীর খাবার তালিকা এই সব কিছু নিয়ে একটি ডিটেলস ওভারভিউ দেবো, যা থেকে এই রোগটির ব্যাপারে আপনি একটি পরিস্কার ধারনা পাবেন

Contents hide

থ্যালাসেমিয়া কি (What is Thalassemia in Bengali)

থ্যালাসেমিয়া কি ” এইটা জানার আগে আমাদের একটি বিষয় নিয়ে জেনে নিতে হবে পুরো ব্যাপারটি ভালো করে বোঝার জন্য, তা হল হিমোগ্লোবিন নিয়ে, আমরা সবাই হিমোগ্লোবিন নামটা কম বেশি শুনেছি , এখন জেনে নেওয়া যাক হিমোগ্লোবিন কি ?

হিমোগ্লোবিন কি ?

থ্যালাসেমিয়া কি | What is Thalassemia in Bengali

আমরা সকলেই red blood cells বা লোহিত রক্ত কণিকা কি জানি,আমাদের রক্তে যে কোষগুলো থাকে তার মধ্যে একটি হল লোহিত রক্ত কণিকা। এই লোহিত কণিকাতে  একটি প্রোটিন থাকে যার নাম হিমোগ্লোবিন।

হিমোগ্লোবিন রক্তের লাল রঙের রঞ্জক পদার্থ। এটি একপ্রকার সংযুক্ত প্রোটিন। এই হিমোগ্লোবিনের দুটি প্রধান অংশ যা হল – হিম মানে আয়রন(4%) এবং গ্লোবিন বা হিস্টন জাতীয় প্রোটিন (96%)

আমরা যখন বাতাসের অক্সিজেন নিই তখন সেটি আমাদের ফুসফুসে (lungs) প্রবেশ করে । হিমোগ্লোবিন সেই অক্সিজেন গ্রহণ করে অক্সি-হিমোগ্লোবিন যৌগ তৈরি করে রক্তের মাধ্যমে পরিবহন করে থাকে আমাদের শরীরের বিভিন্ন অংশে এবং একই ভাবে শরীরের বিভিন্ন অংশ থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড বহন করে নিয়ে আসে ফুস্ফুসে, যা দেহের বাইরে বেরিয়ে যায়

এই হিমোগ্লোবিন নিয়ে জানার পর, আমাদের জেনে নেওয়া দরকার থ্যালাসেমিয়া কি ?

থ্যালাসেমিয়া কি (What is Thalassemia in Bengali)

থ্যালাসেমিয়া হল একটি রোগ, যেটি বাবা মায়ের জিন থেকে বংশগতভাবে আসে সন্তানের জিনে, যার ফলে রক্তে হিমোগ্লোবিন অথবা লোহিত রক্ত কণিকা কমে যায় এবং অ্যানিমিয়া ( anemia) বা রক্তাল্পতা দেখা যায়।

থ্যালাসেমিয়া রোগের কারণ

থ্যালাসেমিয়া-What is Thalassemia in Bengali

হিমোগ্লোবিন একটি প্রোটিন, আমাদের জীবজগতের প্রতিটা প্রাণীর গঠন তৈরি হয় প্রোটিন দিয়ে। তাই আমাদের শরীরটাও অসংখ্য প্রোটিন দিয়ে তৈরি হয়েছে।

আমাদের শরীর তাকে বাড়ির সাথে তুলনা করলে, বাড়ি তৈরির আগে যেমন – বাড়ীর একটি ডিজাইনের ম্যাপ থাকে কোথায় কি হবে, সেই ডিজাইন দেখে ইট দিয়ে বাড়ি তৈরি হয় সেরকম আমাদের শরীরের প্রত্যেকটা অংশ কেমন কি দেখতে হবে, কার কাজ কি হবে সব কিছু কিন্তু নির্ধারণ করে যে ম্যাপটি সেটি হল DNA, এই DNA এর মধ্যে A T G C  এই চারটি পর পর বিভিন্ন সিকুয়েন্সে সজ্জিত থাকে (যেমন – AATCGCATT, TTACGGCTAG, TATTGGCACGTG ইত্যাদি) এবং সেই সিকুয়েন্স থেকেই প্রোটিন তৈরি হয়, এই প্রোটিনগুলো আমাদের দেহটি তৈরি করেছে। আবার কিছু প্রোটিন দেহের ভেতরে অন্য কাজ করে দেহ গঠন করেনা

প্রোটিনগুলো সাধারণত ত্রিমাত্রিক বা 3D হয়ে থাকে। এই প্রোটিনের মধ্যে দুটি অংশ থাকে আলফা চেন এবং বিটা চেন

হিমোগ্লোবিন প্রোটিনেও একইভাবে দুটি চেন রয়েছে, এই দুটি চেনের একটিতে সমস্যার কারণে ঠিকগঠনের হিমোগ্লোবিন তৈরি হয়না

আরও ভালো ভালোভাবে বললে ভেতরে যে DNA ম্যাপ রয়েছে সেখানে ম্যাপের হিমোগ্লোবিন অংশটিতে A T G C  এই চারটি সাজিয়ে যে কোড তৈরি হয়, সেখানে সঠিক কোড না থেকে,ভুল কোড থাকে, কারন মিউটেশন ঘটলে A T G C সঠিক সজ্জার পরিবর্তন ঘটে, (ধরুন, থাকার কথা TTACGGGCTA রয়েছে TTACTAGCTA) ফলে DNA থেকে প্রোটিন তৈরি হলে তা ঠিক গঠনের হয় না

থ্যালাসেমিয়ার প্রকার (Types of thalassemia)

চারটি অ্যামাইনো অ্যাসিডের চেইন হিমোগ্লোবিন তৈরি করে – 2টি আলফা চেন এবং 2 টি বিটা গ্লোবিন চেন (উপরের ছবিতে তির দিয়ে দেখানো)। থ্যালাসেমিয়া হলে, আলফা চেন এবং বিটা চেন – এই অ্যামাইনো অ্যাসিডের চেনে ত্রুটি দেখা দেয়

সাধারনত হিমোগ্লোবিন প্রোটিনের যেই চেনের ডিফেক্ট সেই অনুযায়ী থ্যালাসেমিয়ার প্রকার হয়ে থাকে। এর প্রকারগুলো হল –

আলফা থ্যালাসেমিয়া (Alpha-thalassemia)

এই রোগের কারন, প্রোটিনের ভেতর যে আলফা চেনটি রয়েছে সেটি ত্রুটিপূর্ণ বা defective হয়ে যায় এর ফলে যখন হিমোগ্লোবিন প্রোটিন তৈরি হয় তখন, hemoglobin H নামের একটি  অন্যধরনের হিমোগ্লোবিন তৈরি হয়, যা efficiently অক্সিজেন পরিবহন করতে পারেনা সারা দেহে।

এই রোগের জন্য 16নং ক্রোমোজোমে উপস্থিত আলফা-চেইন উৎপাদনকারী জিনের মিউটেশান বা ডিলিশান দায়ী। ৪টি জিন দিয়ে হিমোগ্লোবিন প্রোটিনের আলফা চেইন তৈরি হয়। বাবা-মা থেকে প্রাপ্ত চারটি জিনের মধ্যে এক বা তার অধিক ত্রুটিপূর্ণ হলে আলফা থ্যালাসেমিয়া হয়। যত বেশি জিন ত্রুটিপূর্ণ হবে তত বেশি মারাত্মক সমস্যা দেখা দেবে

এটিও অনেকগুলো প্রকারের হতে পারে –

আলফা থ্যালাসেমিয়া নিঃশব্দ বাহক ( silent carrier) 

  • জিন – একটি জিন ক্ষতিগ্রস্থ এবং অন্য 3 টি স্বাভাবিক
  • রক্ত পরীক্ষা সাধারণত স্বাভাবিক থাকে।কোনো লক্ষণ ও উপসর্গ দেখা যায় না
  • আক্রান্তের লাল রক্তকণিকা স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট হতে পারে।
  • নিঃশব্দ ক্যারিয়ার হওয়ার অর্থ আক্রান্তের এই রোগের লক্ষণ নেই তবে সে ক্ষতিগ্রস্থ জিনটি তার সন্তানের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন।
  • এটি ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়

আলফা থ্যালাসেমিয়া মাইনর বা ট্রেইট (Alpha thalassemia minor)

2টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে হালকা উপসর্গ দেখা যাবে। এই অবস্থাকে আলফা থ্যালাসেমিয়া মাইনর অথবা আলফা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট বলে।

Hemoglobin H disease 

3টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে এর উপসর্গগুলো মাঝারি থেকে মারাত্মক আকার ধারণ করে। এই অবস্থাকে হিমোগ্লোবিন এইচ ডিজিজ বলে

  • জিন – 3টি জিন ক্ষতিগ্রস্থ এবং অন্য 1টি স্বাভাবিক
  • Hemoglobin H disease  হলে মাঝারি থেকে গুরুতর অ্যানিমিয়া হতে পারে।
  • আপনার নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ, রাসায়নিক বা সংক্রামক এজেন্টগুলির সংস্পর্শে এলে এটি ভয়াবহ হয়ে ওঠে।
  • প্রায়শই রক্ত প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হয়।
  • কারুর আলফা থ্যালাসেমিয়া মেজর থাকলে শিশুরও হওয়ার আলফা থ্যালাসেমিয়া মেজর ঝুঁকি বেশি।

আলফা থ্যালাসেমিয়া মেজর বা হাইড্রপস ফিটালিস (Alpha thalassemia major)

৪টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে একে আলফা থ্যালাসেমিয়া মেজর অথবা হাইড্রপস ফিটালিস বলে

বিটা থ্যালাসেমিয়া (Beta-thalassemia)

আগের মতোই একই ভাবে এখানেও হিমোগ্লোবিন প্রোটিনের চেনটি defective হয়ে যায়, কিন্তু এখানে আলফা চেনের বদলে বিটা চেনে  বদল ঘটে ফলে এটি সঠিক গঠনের হয়না ফলে এটি আংশিক কাজ করে

এক্ষেত্রে DNA এর ভেতর HBB gene অংশে মিউটেশন বা পরিবর্তন ঘটে, ফলে defective বিটা চেন তৈরি হয়, DNA থেকে প্রোটিন তৈরির সময়

এটি প্রকার অনুযায়ী তিন ধরনের হতে পারে –

বিটা থ্যালাসেমিয়া নিঃশব্দ বাহক ( Silent Carrier) 

  • আলফার মতোই এক্ষেত্রে নিঃশব্দ লক্ষনহীন বাহক হতে পারে
  • নিঃশব্দ ক্যারিয়ার হওয়ার অর্থ আক্রান্তের এই রোগের লক্ষণ নেই তবে সে ক্ষতিগ্রস্থ জিনটি তার সন্তানের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন

বিটা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট বা মাইনর 

১টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে হালকা উপসর্গ দেখা যায়। এই অবস্থাকে বিটা থ্যালাসেমিয়া মাইনর (Beta-thalassemia minor) অথবা বিটা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট (Beta-thalassemia trait) বলে। এটি কম গুরুতর হয়ে থাকে

Intermedia beta thalassemia 

  • এক্ষেত্রেও ১টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হয়
  • এটি মাইনর ও মেজর থ্যালাসেমিয়ার মাঝামাঝি রুপ
  • মাঝারি থেকে মারাত্মক অ্যানিমিয়া সৃষ্টি করতে পারে

বিটা থ্যালাসেমিয়া মেজর বা কুলিস অ্যানিমিয়া 

২টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে মাঝারি থেকে মারাত্মক উপসর্গ দেখা যায়। এ অবস্থাকে বলে বিটা থ্যালাসেমিয়া মেজর (Beta-thalassemia major) অথবা কুলিস অ্যানিমিয়া (Cooley’s anemia)। চলতি কথায় এটিকে কেউ কেউ কুলির থ্যালাসেমিয়াও বলে থাকে।

  • নবজাতক যেসব শিশুর এই সমস্যা থাকে তারা জন্মের সময় বেশ স্বাস্থ্যবান থাকে। তবে জন্মের প্রথম দুই বছরের মধ্যেই এর উপসর্গ দেখা যায়।
  • এটি  থ্যালাসেমিয়ার সবচেয়ে গুরুতর বা ভয়াবহ রূপ
  • বিটা থ্যালাসেমিয়া মেজর থাকা ব্যক্তির ঘন ঘন রক্ত পালটানোর প্রয়োজন হয়
  • সাধারণ জীবনযাপন করতেও তাদের অনেক বেশি সমস্যা দেখা যায়

থ্যালাসেমিয়া রোগের লক্ষণ

থ্যালাসেমিয়া রোগের ক্ষেত্রে লোহিত রক্ত কণিকা তথা হিমোগ্লোবিন প্রচুর পরিমানে কমে গিয়ে অ্যানিমিয়া তৈরি করে

থ্যালাসেমিয়া হলে যে যে লক্ষনগুলো সাধারণত দেখা যায় তা হল –

  • চামড়া হলুদ বা ফ্যাকাশে হয়ে যায়
  • খুবই ক্লান্তি আসে
  • শরীরের সাধারন বৃদ্ধি ও বিকাশে দেরি হয়
  • মুত্র গাঢ় ও কালো হয়ে যায়
  • মুখের হাড়ের বিকৃতি লক্ষ করা যায়
  • দুর্বলতা কাজ করে
  • পেট বা abdomen অংশ ফুলে যেতে পারে

থ্যালাসেমিয়া যাদের হতে পারে (Risk factors)

থ্যালাসেমিয়া স্বল্প উন্নত দেশ যেমন – আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল,দক্ষিণ – পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চল, দক্ষিণ চীন, ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে বেশি দেখা যায়

সাধারণত এটি সাধারণত পিতা মাতার থাকলে তা থেকে সন্তানের জিনে চলে যায়। তাই যাদের যাদের ক্ষেত্রে এই রোগ বংশগত তাদের ক্ষেত্রে এই রোগ হওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি

থ্যালাসেমিয়ায় যে যে জটিলতা দেখা যেতে পারে (Complications)

  • শরীরে আইরনের পরিমান বাড়তে পারে – থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের রক্তে আইরন খুব বেড়ে যেতে পারে ঘন ঘন রক্ত প্রতিস্থাপন করার কারণে। ফলে আমাদের হার্ট, লিভার এবং অন্তঃক্ষরা গ্রন্থিগুলোর, যেগুলো থেকে হরমোন তৈরি হয়, ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর ফলে দেহে hormonal dis-balance দেখা যেতে পারে
  • মাথার খুলির হাড়ের বিকৃতি ঘটতে পারে -থ্যালাসেমিয়ার একটি প্রভাব রয়েছে আমাদের হাড়গুলোর উপর। এটি হাড়ের ভেতরের মজ্জাকে বাড়িয়ে তোলে ফলে হাড়ও প্রসারিত হয়। ফলে মুখ বা মাথার হাড়গুলোর যে স্বাভাবিক গঠন সেটা পুরো নষ্ট হতে পারে। এমনকি হাড় ভাঙ্গার সম্ভবনা বেড়ে যায়
  • স্বাভাবিক বৃদ্ধি হার কমে যায় -থ্যালাসেমিয়া হলে লোহিত রক্ত কণিকা নষ্ট হয় ফলে। যা অ্যানিমিয়া রোগ সৃষ্টি করে, যেটা শিশুর বৃদ্ধি এবং বয়ঃসন্ধিতে দেরি করতে পারে।
  • ভয়াবহ বা severe thalassemia এর ক্ষেত্রে heart failure, অস্বাভাবিক হার্ট বিট তৈরি করতে পারে

থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ (Prevention) 

বর্তমানে থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ করা যায় না। কারণ এটি উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত অর্থাৎ পিতামাতার কাছ থেকে সন্তানের জিনে পাস হওয়া blood disorder। তবে বিভিন্ন টেস্টের মাধ্যমে থ্যালাসেমিয়ার বাহক কিনা জানা সম্ভব।

  • বিটা থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়ের জন্য হিমোগ্লোবিন ইলেক্ট্রোফোরেসিস ব্যবহার করা হয়।
  • এছাড়া জেনেটিক টেস্টিং আলফা থ্যালাসেমিয়ার একটি রোগ নির্ণয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • young red blood cell এর পরিমাপ কিংবা সম্পূর্ণ রক্ত গণনা

থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়ে পরীক্ষা বা টেস্ট

Complete blood count (CBC) 

এই পরীক্ষায় আপনার শরীর থাকে নির্দিষ্ট পরিমান রক্ত নেওয়া হয় এবং সেই রক্তের মধ্যে বিভিন্ন blood cells বা রক্ত কোষের আকার, সংখ্যা এবং পরিপক্কতা (size, number, maturity) চেক করা হয়

Hemoglobin electrophoresis with A2 and F quantitation

এই ল্যাব পরীক্ষার সাহায্যে হিমোগ্লোবিনের উপস্থিতি পরীক্ষা করা হয়

FEP (free-erythrocyte protoporphyrin) and ferritin 

আয়রনের ঘাটতিজনিত অ্যানিমিয়ার জন্য এই টেস্ট করা হয়

এছাড়া pregnant মহিলার শিশুর ক্ষেত্রে CVS (chorionic villus sampling) বা amniocentesis নামের একটি টেস্ট করা হয়ে থাকে।

থ্যালাসেমিয়ার চিকিৎসা (treatment of thalassemia)

থ্যালাসেমিয়ার ট্রিটমেন্ট হিসাবে যে যে জিনিসগুলো করা হয় তা হল –

১. ব্লাড ট্র্যান্সফিউশন (blood transfusion) 

ব্লাড ট্র্যান্সফিউশন বা রক্ত প্রতিস্থাপন হ’ল একটি চিকিত্সা পদ্ধতি যেখানে একটি সরু নলের মাধ্যমে রোগীর হাতের শিরাতে বাইরে থেকে ভালো রক্ত সরবরাহ করা হয়।

এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ জীবনরক্ষার পদ্ধতি, কারন surgery, injury, disease, bleeding disorders প্রভৃতির কারণে আমাদের শরীরের বিভিন্ন রক্ত উপাদান তৈরিতে বাধা পায়, বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে blood transfusion করলে ভালো রক্ত প্রতিস্থাপন করা যায়।

যেহেতু থ্যালাসেমিয়ার ক্ষেত্রে red blood cells, hemoglobin ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফলে, যাদের moderate or severe thalassemia রয়েছে তাদের প্রতি ৪ মাসে এবং beta thalassemia major যাদের রয়েছে তাদের প্রত্যেক ২ – ৪ সপ্তাহে একবার এবং যাদের beta thalassemia intermedia রয়েছে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী blood transfusion করে red blood cells কিংবা hemoglobin এর normal level ফিরিয়ে আনা হয়।

২. Iron chelation therapy

থ্যালাসেমিয়া হলে blood transfusion যাদের করা হয় তাদের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যার কারন iron overload বা আইরন বেড়ে যাওয়া। যার ফলে শরীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ organ গুলোকে damage করতে পারে। এই জন্য অতিরিক্ত Ironকে শরীর থেকে বের করার জন্য Iron chelation therapy করা হয়

৩. Nutritional supplements

যেহেতু থ্যালাসেমিয়া হলে blood cells খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফলে, healthy blood cells তৈরি হওয়ার জন্য ভিটামিন B12 level কে monitor করা হয় এবং folic acid supplements দেওয়া হয়ে থাকে, কারন healthy blood cells তৈরি হওয়ার ক্ষেত্রে এই দুটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ

৪. Bone marrow এর stem cell transplant 

হাড়ের ভেতরে যে লাল অস্থিমজ্জা বা Bone marrow রয়েছে ওখানে একটি সেল থাকে যার নাম stem cell, ওই সেলগুলো mature হয়ে রক্তের red blood cell তৈরি করে। থ্যালাসেমিয়া হলে red blood cell সবচেয়ে বেশি কমে যায়।

তাহলে যাদের red blood cell কমে যায় তাদের ক্ষেত্রে যদি bone marrow এর stem cell কে transplant করা যায় তাহলে নতুন red blood cell তৈরি হবে

এই জন্য stem cell transplant করা যায়, যেখানে সুস্থ ব্যক্তির stem cell নিয়ে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে প্রবেশ করানো হয়, যাতে তার দেহে blood cells ক্ষতির মাত্রা গুলো পুরন হতে পারে। তার দেহে stem cell develop করতে শুরু করলে healthy blood cells তৈরি হয়

থ্যালাসেমিয়া রোগীর ক্ষেত্রে stem cell transplant পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল human leukocyte antigen (HLA) নামের একটি cell surface protein, কারন দাতা ও গ্রহীতা দুজনের ক্ষেত্রে একই ধরনের human leukocyte antigen প্রোটিন থাকা দরকার স্টেম সেল ট্রান্সপ্ল্যান্ট করার জন্য। ঠিক এই কারনে নিজেদের ভাই বোন বা খুবই কাছাকাছি ব্যক্তিদের সিলেক্ট করা হয় stem cell transplant করার জন্য

থ্যালাসেমিয়া রোগীর খাবার তালিকা

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন বজায় রাখতে সবার জন্য পুষ্টিকর খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। ফলমূল এবং শাকসব্জির পরিমাণ বেশি এবং চর্বি কম এরকম খাবার আমাদের দেহের প্রয়োজনীয় পুষ্টি অর্জনের জন্য আদর্শ।

থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য, কারণ রক্তে প্রচুর পরিমাণে আয়রন তৈরি হতে পারে, তাই আয়রনযুক্ত উচ্চতর খাবারের সীমাবদ্ধতা প্রয়োজন।

নীচে কোন কোন খাবারে বেশি আইরন থাকতে পারে তার একটি লিস্ট দেওয়া হল। তবে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত ব্যক্তিদের তাদের ডায়েটে আয়রনের পরিমাণ সীমিত করা উচিত কিনা তা অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে অবশ্যই অবশ্যই আলোচনা করা উচিত

প্রোটিনগুলি যা খাদ্য থেকে এড়ানো উচিত – 

  • ঝিনুক
  • লিভার
  • শুয়োরের মাংস
  • মটরশুটি
  • গরুর মাংস
  • peanut butter
  • টফু

ফল / শাকসবজি যা খাদ্য থেকে এড়ানো উচিত – 

  • তরমুজ
  • পালং শাক
  • শাকসব্জী
  • খেজুর
  • কিসমিস
  • ব্রোকলি
  • মটর

Noteথ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির ডায়েটে খাবারের তালিকা তৈরি করার সময় তা অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে জিগ্যেস করে জেনে নেওয়া প্রয়োজন 

থ্যালাসেমিয়া এড়ানোর জন্য কি কি করা প্রয়োজন

Test – টেস্ট

প্রায়শই সম্পূর্ণ রক্ত গণনা এবং রক্তের আয়রন পরীক্ষা করা প্রয়োজন। প্রতি বছর হার্ট ফাংশন এবং লিভার ফাংশন টেস্টের পাশাপাশি ভাইরাল সংক্রমণের জন্য পরীক্ষা করা প্রয়োজন (যেহেতু থ্যালাসেমিয়া হওয়ায় আপনার কিছু গুরুতর সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে )। আপনার লিভারে আয়রন ওভারলোডের জন্য আপনার বার্ষিক পরীক্ষাও করতে হবে।

Exercise – শরীরচর্চা

যাদের থ্যালাসেমিয়া রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে শরীরচর্চা করা প্রয়োজন নিজেদের শরীর ঠিক রাখতে। যদিও থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা গুরুতর ব্যায়াম গুলি করতে সমস্যা হয় তবে তারা সাইকেল চালানো, দৌড়ানো এবং হাঁটাচলা সহ মাঝারি ধরনের শরীরচর্চায় অংশ নিতে পারেন।

এছাড়া যাদের জয়েন্টে সমস্যা তারা yoga, swimming প্রভৃতি করতে পারেন

থ্যালাসেমিয়ার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য 

  • বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে যান যে আপনি থ্যালাসেমিয়ার বাহক কি না
  • এক জন থ্যালাসেমিয়ার বাহক যেন আর এক জন বাহককে বিয়ে না করেন
  • বিয়ের পরে যদি দেখা যায় স্বামী অথবা স্ত্রীর মধ্যে এক জন এই রোগের বাহক তা হলে অবশ্যই অন্য জন রক্তপরীক্ষা করান
  • যদি দেখা যায়, স্বামী ও স্ত্রী দু’জনেই থ্যালাসেমিয়ার বাহক তা হলে গর্ভাবস্থায় ৮ থেকে ১২ সপ্তাহের মধ্যে ভ্রূণের পরীক্ষা করান
  • যদি কোন পরিবারের এক জন থ্যালাসেমিয়া বাহক হন তা হলে পরিবারের সকলেই রক্তপরীক্ষা করান

প্রশ্ন-উত্তর

কিভাবে বুঝব আমার থ্যালাসেমিয়া আছে কিনা ?

আপনাকে রক্ত পরীক্ষা করে blood cell count করাতে হবে

থ্যালাসেমিয়া কত প্রকার ?

মুলত দুই প্রকার - আলফা ও বিটা এছাড়া রোগ অনুযায়ী মেজর, মাইনর, ইন্টারমিডিয়া হতে পারে

থ্যালাসেমিয়া কি ভালো হয় ?

হ্যাঁ, থ্যালাসেমিয়া ভালো হতে পারে

থ্যালাসেমিয়া কি জাতীয় রোগ ?

এটি একটি জিনের ত্রুটি জনিত রোগ

কুলির থ্যালাসেমিয়া কি ?

বিটা থ্যালাসেমিয়া মেজরকে বিটাকে কুলির থ্যালাসেমিয়া বলে

থ্যালাসেমিয়া কিভাবে হয় ?

হিমোগ্লোবিনের আলফা, বিটা জিনে ত্রুটি থাকলে থ্যালাসেমিয়া হয়

আন্তর্জাতিক থ্যালাসেমিয়া দিবস কবে ?

৮ মে পালিত হয় আন্তর্জাতিক বা বিশ্ব থ্যালাসেমিয়া দিবস

থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধের উপায় কি ?

এটি প্রতিরোধের সেরকম উপায় নেই তবে বিবাহের আগে থ্যালাসেমিয়া টেস্ট করা প্রয়োজন

থ্যালাসেমিয়া টেস্ট কি ?

কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (CBC), হিমোগ্লোবিন ইলেকট্রোফোরেসিস (Hemoglobin Electrophoresis), ডিএনএ (DNA) তথা জেনেটিক টেস্টিং করে জানা যেতে পারে থ্যালাসেমিয়া আছে কিনা

বিটা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট কি ?

১টি জিন ত্রুটিপূর্ণ হলে হালকা উপসর্গ দেখা যায়, একে বিটা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট বলে

থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়ে কি কি পরীক্ষা করা হয় ?

কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (CBC), হিমোগ্লোবিন ইলেকট্রোফোরেসিস (Hemoglobin Electrophoresis), জেনেটিক টেস্টিং টেস্টিং, এছাড়া হাত ও মাথার এক্স-রে করা হয়

থ্যালাসেমিয়ার প্রধান কারণ কি ?

থ্যালাসেমিয়ার প্রধান কারণ হিমোগ্লোবিনের আলফা, বিটা চেনে ত্রুটি

থ্যালাসেমিয়া মেজর কি ?

বিটা থ্যালাসেমিয়া মেজর হল ২টি বিটা জিন ত্রুটিপূর্ণ, এটি ভয়াবহ রুপ

থ্যালাসেমিয়া রোগ কি ছোঁয়াচে ?

না, এটি কোনও ভাবেই ছোঁয়াচে, এমনকি, সংক্রামকও নয়। এটি যৌন সংসর্গে, রক্ত দিলে ছড়ায় না

Source –

 

Sharing is Caring ❤

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *